ঢাকা ১০:৪২ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ৮ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
শিরোনামঃ
শ্যামনগরে বয়স্ক,প্রতিবন্ধী ভাতার বহি ও জটিল রোগে আক্রান্তদের মাঝে চেক বিতরণ সাতক্ষীরায় থানা ঘেরাওর চেষ্টা কোটা আন্দোলনকারীদের, পুলিশের লাঠিচার্জ স্বাধীনতা বিরোধী স্লোগানের নিন্দা জানিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট বার শ্যামনগর কাশিমাড়ী সুপেয় পানির ট্যাংক বিতরণ বসন্তপুর নদীবন্দর পরিদর্শন করলেন বিআইডব্লিউটি ও ভুমি মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ সম্মান দেখাতে হবে : প্রধানমন্ত্রী শ্যামনগরে স্মাট জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণ কার্যক্রম উদ্বোধন নওগাঁর মন্দা বদ্দপুরে তালগাছ চারা রোপন শুভ উদ্বোধন করেন এমপি গামা তালায় দলিত জনগোষ্ঠীর আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন শীর্ষক মতবিনিময় অনুষ্ঠিত দেবহাটায় নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে উঠান বৈঠক

হার্ভার্ড লাইব্রেরি বই বাঁধাই থেকে মানুষের চামড়া অপসারণ

  • Sound Of Community
  • পোস্ট করা হয়েছে : ০৭:০৫:০৭ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ৩০ মার্চ ২০২৪
  • ১৯৬ জন পড়েছেন ।

বিশ্বের মর্যাদাপূর্ণ হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয় বুধবার বলেছে, বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি গ্রন্থাগারে ৯০ বছরেরও বেশি সময় ধরে রাখা একটি বইয়ের বাঁধন থেকে মানুষের চামড়া অপসারন করা হয়েছে।

১৯ শতকের বই ‘ডেস ডেস্টিনেস দে ল’আমে’ – বা আত্মার নিয়তি। মৃত্যুর পর জীবনের একটি ধ্যান-এর একটি অনুলিপি ২০১৪ সালে এক মৃত মহিলার চামড়ায় আবদ্ধ অবস্থায় পাওয়া গিয়েছিল।
হার্ভার্ড বলেছে, বইটির বাঁধাই অপসারন করা হয়েছে এবং উল্লেখ করেছে ‘বইটির তদারককারীদের অতীতের ব্যর্থতা যা মানুষের মর্যাদাকে আরও আপত্তিকর এবং যার দেহাবশেষ বাঁধাইয়ের জন্য ব্যবহৃত হয়েছিল তাকে হেয় করেছে।’
বিশ্ববিদ্যালয় বলেছে, তারা ‘এই মানব দেহাবশেষের একটি চূড়ান্ত সম্মানজনক অবস্থান নির্ধারণ করতে ফরাসি কর্তৃপক্ষের সাথে পরামর্শ করছে।’
যুুক্তরাষ্ট্রের প্রাচীনতম কলেজ হিসাবে বিবেচিত হার্ভার্ড ‘এই বিষাদগ্রস্থ গল্পের বইটির প্রতি আগ্রহ জাগিয়েছিল, ২০১৪ সালের আবিষ্কারটিকে ‘নৃতাত্ত্বিক গ্রন্থপঞ্জি, গ্রন্থ সংগ্রাহক এবং নরখাদকদের অনুরাগীদের মধ্যে উদ্দীপক হিসেবে অভিহিত করেছিল।’
হার্ভার্ড ২০১৪ সালের একটি ব্লগ পোস্টে বলেছিল, নৃতাত্ত্বিক গ্রন্থপঞ্জিতে মানুষের ত্বকে বই বাঁধাই করার অভ্যাস একসময় তুলনামূলকভাবে সাধারণ অভ্যাসে পরিণত হয়েছিল।
ইউনিভার্সিটি বলেছে, ফরাসি লেখক আর্সেন হাউসেয়ের লেখা বইটির প্রথম মালিক বই সংগ্রাহক,চিকিৎসক লুডোভিক বোল্যান্ড সেই সময়ে মানসিকভাবে অসুস্থ এক মহিলার শরীর থেকে চামড়া নিয়েছিলেন, যিনি হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছিলেন। সেখানে তিনি কাজ করতেন।
বোল্যান্ড একটি নোটে হাউসেয়েকে বলেছিলেন: ‘মানুষের আত্মা সম্পর্কে একটি বই মানুষের ত্বকের আবরণ পাওয়ার যোগ্য।’
বুধবার হার্ভার্ড বিবৃতিতে বলেছে, ‘বইটির সাথে সম্পর্কিত বোল্যান্ডের স্টুয়ার্ডশিপ অনুশীলনগুলো ‘নৈতিক মানগুলোর স্তর পূরণ করতে ব্যর্থ হয়েছে।’
এতে বলা হয়, বইটি মানুষের ত্বকে আবদ্ধ ছিল তা নিশ্চিত করার বৈজ্ঞানিক বিশ্লেষণের পরে লাইব্রেরি ব্লক পোস্টে বইটি সম্পর্কে ‘একটি চাঞ্চল্যকর, বিষাদগ্রস্ত এবং হাস্যকর টোন ব্যবহার করেছে যা অনুরূপ আন্তর্জাতিক মিডিয়া কভারেজকে উৎসাহিত করে।’
২০২২ সালে হার্ভার্ড একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে, এতে বলা হয় বিশ্ববিদ্যলয়টির বিভিন্ন সংগ্রহে ২০,০০০ টিরও বেশি বইয়ে বাঁধাইয়ে মানুষের দেহাবশেষ শনাক্ত করেছে, এতে কঙ্কাল থেকে দাঁত, চুল এবং হাড়ের টুকরো পর্যন্ত রয়েছে।

নিখাদ

Tag :
রিপোর্টার সম্পর্কে

Sound Of Community

জনপ্রিয় সংবাদ

শ্যামনগরে বয়স্ক,প্রতিবন্ধী ভাতার বহি ও জটিল রোগে আক্রান্তদের মাঝে চেক বিতরণ

হার্ভার্ড লাইব্রেরি বই বাঁধাই থেকে মানুষের চামড়া অপসারণ

পোস্ট করা হয়েছে : ০৭:০৫:০৭ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ৩০ মার্চ ২০২৪

বিশ্বের মর্যাদাপূর্ণ হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয় বুধবার বলেছে, বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি গ্রন্থাগারে ৯০ বছরেরও বেশি সময় ধরে রাখা একটি বইয়ের বাঁধন থেকে মানুষের চামড়া অপসারন করা হয়েছে।

১৯ শতকের বই ‘ডেস ডেস্টিনেস দে ল’আমে’ – বা আত্মার নিয়তি। মৃত্যুর পর জীবনের একটি ধ্যান-এর একটি অনুলিপি ২০১৪ সালে এক মৃত মহিলার চামড়ায় আবদ্ধ অবস্থায় পাওয়া গিয়েছিল।
হার্ভার্ড বলেছে, বইটির বাঁধাই অপসারন করা হয়েছে এবং উল্লেখ করেছে ‘বইটির তদারককারীদের অতীতের ব্যর্থতা যা মানুষের মর্যাদাকে আরও আপত্তিকর এবং যার দেহাবশেষ বাঁধাইয়ের জন্য ব্যবহৃত হয়েছিল তাকে হেয় করেছে।’
বিশ্ববিদ্যালয় বলেছে, তারা ‘এই মানব দেহাবশেষের একটি চূড়ান্ত সম্মানজনক অবস্থান নির্ধারণ করতে ফরাসি কর্তৃপক্ষের সাথে পরামর্শ করছে।’
যুুক্তরাষ্ট্রের প্রাচীনতম কলেজ হিসাবে বিবেচিত হার্ভার্ড ‘এই বিষাদগ্রস্থ গল্পের বইটির প্রতি আগ্রহ জাগিয়েছিল, ২০১৪ সালের আবিষ্কারটিকে ‘নৃতাত্ত্বিক গ্রন্থপঞ্জি, গ্রন্থ সংগ্রাহক এবং নরখাদকদের অনুরাগীদের মধ্যে উদ্দীপক হিসেবে অভিহিত করেছিল।’
হার্ভার্ড ২০১৪ সালের একটি ব্লগ পোস্টে বলেছিল, নৃতাত্ত্বিক গ্রন্থপঞ্জিতে মানুষের ত্বকে বই বাঁধাই করার অভ্যাস একসময় তুলনামূলকভাবে সাধারণ অভ্যাসে পরিণত হয়েছিল।
ইউনিভার্সিটি বলেছে, ফরাসি লেখক আর্সেন হাউসেয়ের লেখা বইটির প্রথম মালিক বই সংগ্রাহক,চিকিৎসক লুডোভিক বোল্যান্ড সেই সময়ে মানসিকভাবে অসুস্থ এক মহিলার শরীর থেকে চামড়া নিয়েছিলেন, যিনি হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছিলেন। সেখানে তিনি কাজ করতেন।
বোল্যান্ড একটি নোটে হাউসেয়েকে বলেছিলেন: ‘মানুষের আত্মা সম্পর্কে একটি বই মানুষের ত্বকের আবরণ পাওয়ার যোগ্য।’
বুধবার হার্ভার্ড বিবৃতিতে বলেছে, ‘বইটির সাথে সম্পর্কিত বোল্যান্ডের স্টুয়ার্ডশিপ অনুশীলনগুলো ‘নৈতিক মানগুলোর স্তর পূরণ করতে ব্যর্থ হয়েছে।’
এতে বলা হয়, বইটি মানুষের ত্বকে আবদ্ধ ছিল তা নিশ্চিত করার বৈজ্ঞানিক বিশ্লেষণের পরে লাইব্রেরি ব্লক পোস্টে বইটি সম্পর্কে ‘একটি চাঞ্চল্যকর, বিষাদগ্রস্ত এবং হাস্যকর টোন ব্যবহার করেছে যা অনুরূপ আন্তর্জাতিক মিডিয়া কভারেজকে উৎসাহিত করে।’
২০২২ সালে হার্ভার্ড একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে, এতে বলা হয় বিশ্ববিদ্যলয়টির বিভিন্ন সংগ্রহে ২০,০০০ টিরও বেশি বইয়ে বাঁধাইয়ে মানুষের দেহাবশেষ শনাক্ত করেছে, এতে কঙ্কাল থেকে দাঁত, চুল এবং হাড়ের টুকরো পর্যন্ত রয়েছে।

নিখাদ