ঢাকা ১১:৪৭ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ৮ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
শিরোনামঃ
শ্যামনগরে বয়স্ক,প্রতিবন্ধী ভাতার বহি ও জটিল রোগে আক্রান্তদের মাঝে চেক বিতরণ সাতক্ষীরায় থানা ঘেরাওর চেষ্টা কোটা আন্দোলনকারীদের, পুলিশের লাঠিচার্জ স্বাধীনতা বিরোধী স্লোগানের নিন্দা জানিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট বার শ্যামনগর কাশিমাড়ী সুপেয় পানির ট্যাংক বিতরণ বসন্তপুর নদীবন্দর পরিদর্শন করলেন বিআইডব্লিউটি ও ভুমি মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ সম্মান দেখাতে হবে : প্রধানমন্ত্রী শ্যামনগরে স্মাট জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণ কার্যক্রম উদ্বোধন নওগাঁর মন্দা বদ্দপুরে তালগাছ চারা রোপন শুভ উদ্বোধন করেন এমপি গামা তালায় দলিত জনগোষ্ঠীর আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন শীর্ষক মতবিনিময় অনুষ্ঠিত দেবহাটায় নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে উঠান বৈঠক

কালিগঞ্জে বারোমাসি সজিনা চাষে সফল তপতি সরকার

  • Sound Of Community
  • পোস্ট করা হয়েছে : ০১:৪৯:০৮ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ মে ২০২৩
  • ২২৭ জন পড়েছেন ।

কালিগঞ্জ প্রতিনিধিঃ

পুষ্টি ও ঔষধি গুণাগুণে ভরপুর বারোমাসি সজিনার চাষ বাণিজ্যিক ভাবে শুরু হয়েছে দক্ষিণ শ্রীপুরে। আধুনিক প্রযুক্তিতে সজিনার চাষ করেছেন কালিগঞ্জ উপজেলার দক্ষিণ শ্রীপুর ইউনিয়নের টোনা গ্রামের তপতি সরকার। বর্তমানে তার এ বাগানটিতে গাছে গাছে দুলছে সজিনার ডাটা। সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে তপতি সরকারের বাগানটি দেখতে দূর দূরান্ত থেকে লোকজন আসছে। অনেকেই বাগান থেকে সজিনা কিনছেন কেউবা বাগান করার বিষয়ে তথ্য নিচ্ছেন। তপতি সরকার জানান, দক্ষিণ শ্রীপুর উপসহকারী কৃষি অফিসার শেখ আবু লতিফ শামসুজ্জামানের পরামর্শে নতুন কিছু করার জন্য ইউটিউবে সার্চ করেন সজিনা বিভিন্ন সবজি চাষে।এরই মধ্যে চোখে পড়ে বারোমাসি সজিনা চাষের ভিডিওটি দেখে। এ থেকেই শুরু করেন সজিনা চাষ।বেশ কিছু পতিত জমি নিয়ে শুরু করেন সজিনা চাষ।

৬ মাসের মধ্যে সজিনা বাজারে এনে বিক্রি করতে পেরে বেশ খুশি সে। তপতি বলেন, ভারতের তামিলনাড়ু থেকে বীজ সংগ্রহ করে তিন শতক জমিতে শুরু করেন সজিনার চাষ। তিন শতক জমিতে প্রায় ১শ বীজ বপন করেন। সম্পূর্ণ জৈব্য সার ব্যবহার করে সামান্য পরিচর্যায় বীজ বপনের ৬ মাসের মধ্যেই প্রতিটি গাছে ফুল আসে। বর্তমানে বাগানের গাছে গাছে ঝুলছে সজিনা ডাটা ও ফুল। গত দুই মাস ধরে নিয়মিত সজিনা বাজারে নিয়ে বিক্রি করছেন। বাজারে সজিনার ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। পাইকারী ভাবে প্রতি কেজি সজিনা বিক্রি হচ্ছে ৮০ থেকে ১০০ টাকায়। আর বাজারে প্রতি কেজি সজিনা বিক্রি করা হচ্ছে ১২০ থেকে ১৫০ টাকায়।
দক্ষিণ শ্রীপুর উপসহকারী কৃষি অফিসার শেখ আবু লতিফ শামসুজ্জামান জানান, সজিনা একটি ম্যাজিক ফসল। সজিনায় সব ধরনের খনিজ পদার্থ রয়েছে। সজিনার পাতা, ফুল, ফল, বাকল ও শিকড় সবকিছুই ব্যবহার করা যায়। দক্ষিণ শ্রীপুরে বাণিজ্যিক ভাবে সজিনা চাষে কৃষকদের সহযোগীতার করছে উপজেলা কৃষি বিভাগ।তপতি সরকার এসএ সি পি প্রকল্পের একজন সদস্য।

Tag :
রিপোর্টার সম্পর্কে

Sound Of Community

জনপ্রিয় সংবাদ

শ্যামনগরে বয়স্ক,প্রতিবন্ধী ভাতার বহি ও জটিল রোগে আক্রান্তদের মাঝে চেক বিতরণ

কালিগঞ্জে বারোমাসি সজিনা চাষে সফল তপতি সরকার

পোস্ট করা হয়েছে : ০১:৪৯:০৮ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ মে ২০২৩

কালিগঞ্জ প্রতিনিধিঃ

পুষ্টি ও ঔষধি গুণাগুণে ভরপুর বারোমাসি সজিনার চাষ বাণিজ্যিক ভাবে শুরু হয়েছে দক্ষিণ শ্রীপুরে। আধুনিক প্রযুক্তিতে সজিনার চাষ করেছেন কালিগঞ্জ উপজেলার দক্ষিণ শ্রীপুর ইউনিয়নের টোনা গ্রামের তপতি সরকার। বর্তমানে তার এ বাগানটিতে গাছে গাছে দুলছে সজিনার ডাটা। সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে তপতি সরকারের বাগানটি দেখতে দূর দূরান্ত থেকে লোকজন আসছে। অনেকেই বাগান থেকে সজিনা কিনছেন কেউবা বাগান করার বিষয়ে তথ্য নিচ্ছেন। তপতি সরকার জানান, দক্ষিণ শ্রীপুর উপসহকারী কৃষি অফিসার শেখ আবু লতিফ শামসুজ্জামানের পরামর্শে নতুন কিছু করার জন্য ইউটিউবে সার্চ করেন সজিনা বিভিন্ন সবজি চাষে।এরই মধ্যে চোখে পড়ে বারোমাসি সজিনা চাষের ভিডিওটি দেখে। এ থেকেই শুরু করেন সজিনা চাষ।বেশ কিছু পতিত জমি নিয়ে শুরু করেন সজিনা চাষ।

৬ মাসের মধ্যে সজিনা বাজারে এনে বিক্রি করতে পেরে বেশ খুশি সে। তপতি বলেন, ভারতের তামিলনাড়ু থেকে বীজ সংগ্রহ করে তিন শতক জমিতে শুরু করেন সজিনার চাষ। তিন শতক জমিতে প্রায় ১শ বীজ বপন করেন। সম্পূর্ণ জৈব্য সার ব্যবহার করে সামান্য পরিচর্যায় বীজ বপনের ৬ মাসের মধ্যেই প্রতিটি গাছে ফুল আসে। বর্তমানে বাগানের গাছে গাছে ঝুলছে সজিনা ডাটা ও ফুল। গত দুই মাস ধরে নিয়মিত সজিনা বাজারে নিয়ে বিক্রি করছেন। বাজারে সজিনার ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। পাইকারী ভাবে প্রতি কেজি সজিনা বিক্রি হচ্ছে ৮০ থেকে ১০০ টাকায়। আর বাজারে প্রতি কেজি সজিনা বিক্রি করা হচ্ছে ১২০ থেকে ১৫০ টাকায়।
দক্ষিণ শ্রীপুর উপসহকারী কৃষি অফিসার শেখ আবু লতিফ শামসুজ্জামান জানান, সজিনা একটি ম্যাজিক ফসল। সজিনায় সব ধরনের খনিজ পদার্থ রয়েছে। সজিনার পাতা, ফুল, ফল, বাকল ও শিকড় সবকিছুই ব্যবহার করা যায়। দক্ষিণ শ্রীপুরে বাণিজ্যিক ভাবে সজিনা চাষে কৃষকদের সহযোগীতার করছে উপজেলা কৃষি বিভাগ।তপতি সরকার এসএ সি পি প্রকল্পের একজন সদস্য।